মঙ্গলবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৯:১১ অপরাহ্ন
ঘোষনা :
জেকে টিভি'র জন্য জেলা ও উপজেলা প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হবে।  আগ্রহীরা ছবি ও যোগ্যতাসহ জীবন বৃত্তান্ত (সি.ভি)  পাঠান। ই-মেইল: jktv1401@gmail.com

খুলনায় লাইসেন্সের আওতায় আসছে ইজিবাইক

Reporter Name
  • আপডেট টাইম : শনিবার, ৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৯
  • ২০৪ বার নিউজটি পড়া হয়েছে

বিশেষ প্রতিনিধি :
ব্যাটারিচালিত ইজিবাইক নিয়ন্ত্রণে আনতে এগুলোকে লাইসেন্সের আওতায় আনতে যাচ্ছে খুলনা সিটি করপোরেশন (কেসিসি)। লাইসেন্স প্রদানের জন্য গত ১ সেপ্টেম্বর থেকে এককালীন ১০ হাজার টাকার পে-অর্ডার জমা নেওয়া হচ্ছে। চলতি মাসের শেষের দিকে লাইসেন্স দেওয়া হবে।

লাইসেন্স প্রদানের জন্য প্রতিটি ইজিবাইক সবুজ ও লাল রঙ করা এবং ডানপাশ দিয়ে যাত্রী ওঠানামা স্থায়ীভাবে বন্ধ করার শর্ত দিয়েছে কেসিসির লাইসেন্স শাখা। শর্ত অমান্যকারীদের ইজিবাইকের লাইসেন্স প্রদান করা হবে না। এদিকে নগরীতে চলাচলকারী রিকশার ইঞ্জিন খুলে ফেলতে ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সময় বেঁধে দিয়েছে কেসিসি। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে রিকশার ইঞ্জিন না খুললে মোবাইল কোর্ট পরিচালনার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সংস্থাটি।

সংশ্নিষ্টরা জানান, খুলনা মহানগরীতে যানজট এবং সড়ক দুর্ঘটনার অন্যতম কারণ মাত্রাতিরিক্ত ইজিবাইক। ইজিবাইকের আধিক্যের কারণে নগরীর গুরুত্বপূর্ণ প্রতিটি সড়কেই যানজট দেখা দেয়। ইজিবাইক নিয়ন্ত্রণে আনতে গত জানুয়ারি মাস থেকে লাইসেন্স প্রদান কার্যক্রম শুরু করে কেসিসি। গত ২১ জানুয়ারি থেকে আবেদন ফরম বিতরণ ও জমা নেওয়া শুরু হয়, চলে ১৪ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত।

শুধু খুলনা মহানগরীর ভোটাররাই এই আবেদন করতে পেরেছেন।

সূত্র জানায়, নির্ধারিত সময়ে ৮ হাজার ২২২টি আবেদন ফরম বিতরণ করা হয় এবং জমা পড়ে ৭ হাজার ৮৮৮টি। যাচাই-বাছাই শেষে ৭ হাজার ৭৯২টি আবেদন সঠিক বলে শনাক্ত হয়েছে। বাতিল করা হয় ৯৬টি আবেদন। গত ২৪ জুলাই আবেদনগুলো নগরীর ৩১টি ওয়ার্ডে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। গত ১ সেপ্টেম্বর থেকে নগরীর ১ নম্বর ওয়ার্ডের চালকদের কাছ থেকে ১০ হাজার টাকার পে-অর্ডার গ্রহণ শুরু হয়েছে। গতকাল বুধবার ৯, ১০ ও ১১ নম্বর ওয়ার্ডের ইজিবাইক চালকদের পে-অর্ডার জমা নেওয়া হয়েছে।

কেসিসির সিনিয়র লাইসেন্স অফিসার ফারুক হোসেন তালুকদার জানান, ১৫ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত পে-অর্ডার জমা নেওয়া হবে। সেপ্টেম্বরের শেষের দিকে ইজিবাইকসহ চালকদের হাদিস পার্কে ডাকা হবে। সেখানে ইজিবাইকে স্টিকার লাগানো ও চালকদের হাতে লাইসেন্স তুলে দেওয়া হবে।

সিটি মেয়র তালুকদার আবদুল খালেক বলেন, ৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে রিকশা থেকে ইঞ্জিন খুলে ফেলতে হবে। না হলে পুলিশ দিয়ে ইঞ্জিন খোলার ব্যবস্থা নেওয়া হবে। নির্দিষ্ট সংখ্যার বাইরে নগরীতে ইজিবাইক চলতে দেওয়া হবে না। লাইসেন্স প্রদান কার্যক্রম শেষ হলে প্রতি সপ্তাহে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর ....
© All rights reserved © jknewstv.com
Developed By Rinku
themes254654365664
error: Content is protected !!