মঙ্গলবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৪:৪৭ পূর্বাহ্ন
ঘোষনা :
জেকে টিভি'র জন্য জেলা ও উপজেলা প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হবে।  আগ্রহীরা ছবি ও যোগ্যতাসহ জীবন বৃত্তান্ত (সি.ভি)  পাঠান। ই-মেইল: jktv1401@gmail.com

কুষ্টিয়ায় ক্লিনিকে গৃহবধুর পেটে অপারেশনের যন্ত্রাংশ রেখেই সেলাই দিলেন ডাক্তার!

Reporter Name
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৯
  • ২১৩ বার নিউজটি পড়া হয়েছে

জাহাঙ্গীর আলমঃ- কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা উপজেলা বাহাদুরপুর ইউনিয়নের কুচিয়ামোড়া এলাকায় অবৈধ্য রেজিষ্ট্রেশন বিহীন গ্রীনলাইফ ক্লিনিক এন্ড ডায়াগনিষ্টিক সেন্টার একের পর এক ভূল চিকিৎসা চালিয়ে যাওয়া অভিযোগ উঠেছে। সেখানে আবারও ভুল চিকিৎসার শিকার এক গৃহবধূ মৃত্যুর সাথে পাজ্ঞা লড়ছে। ওই গৃহবধু শিল্পী খাতুনের পেটের মধ্যে বাচ্চার নাড়ি এক অংশ থেকে যায় এবং অপারেশনে ব্যাবহৃত যন্ত্রাংশ পেটের মধ্যে রেখে অপারেশন শেষ করে সেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসক এবং ক্লিনিক থেকে ছাড়পত্র দিয়ে ছেড়ে দেয়া হয়েছে তাকে । ওই রোগী এখন ঢাকা মেডিকেলে মৃত্যুর সাথে পাজ্ঞা লড়ছে।

এঘটনায় কুষ্টিয়া সিভিল সার্জন ও ভেড়ামারা উপজেলা নির্বাহী অফিসারসহ বিভিন্ন দপ্তরে সুষ্ঠ বিচারের দাবী জানিয়ে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছে ভুক্তোভূগি পরিবার।

ভেড়ামারা উপজেলা বাহাদুরপুর ইউনিয়নের মালিপাড়া এলাকার গোলাম হোসেনের ছেলে উজ্জলের লিখিত অভিযোগ সুত্রে জানা গেছে, উপজেলা বাহাদুরপুর ইউনিয়নের কুচিয়ামোড়া এলাকার কালাম ডাক্তারের ছেলে জয়, একই এলাকার কুদুস আহম্মেদের ছেলে সজল এবং রাজিব গত ০৬-০৭-১৯ ইং তারিখে গৃহবধু শিল্পী খাতুন কে আমাদের অমতে জোরপূর্বক ভাবে গ্রীনলাইফ ক্লিনিক এন্ড ডায়াগনিষ্টিক সেন্টারে সিজারের উদ্দেশে ভর্তি করে। জয় ও তার নার্সরা ডাক্তার বিহীন নিজেরাই শিল্পী খাতুন কে সিজার করে। সিজার করানো শেষে বাচ্চা সুস্থটি থাকে। কিন্ত শিল্পী খাতুনের পেটের মধ্যে বাচ্চার নাড়ীর একাংশ থেকে যায় এবং অপারেশনের ব্যাবহৃত যন্ত্রাংশ পেটের মধ্যে রেখে অপারেশন সম্পন্ন করে। শিল্পী খাতুনের পেটে ব্যাথা শুরু হলে গ্রীনলাইফ ক্লিনিক এন্ড ডায়াগনিষ্টিক সেন্টারের মালিক জয় বুঝতে পারে তারা আপারেশন ভূল করেছে। তারা রোগীকে ক্লিনিকে আটকিয়ে রেখে বিভিন্ন ভাবে ভয়ভীতি দেখাতে থাকে মালিক জয় ও তার বাহিনীরা। তারা মিমাংসা করার চেষ্টা করে। শিল্পী খাতুনের অবস্থা আশংকা জনক হলে গ্রীনলাইফ ক্লিনিক এন্ড ডায়াগনিষ্টিক সেন্টারের মালিক জয় ছাড়পত্র দেয়। শিল্পী খাতুনের অবস্থা আশংকা জনক অবস্থায় কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে নেওয়া হলে অবস্থা আরো খারাপ হলে তাকে রাজশাহী মেডিকেল হাসপাতালে পাঠালে সেখান থেকে ঢাকা মেডিকেল হাসপাতালে প্রেরণ করে। শিল্পী খাতুন এখন মৃত্যুর সাথে পাজ্ঞা লড়ছে।
এছাড়াও ভেড়ামারা উপজেলা বাহাদুরপুর ইউনিয়নের বাশেরদিয়াড় গ্রামের মৃত ওয়াজ উদ্দিনের ছেলে রেজাউল করিমের স্ত্রী বেদেনা বেগম অসুস্থ্য হয়ে পড়লে আল্ট্রাসনে করে দেখা গেছে ঋরনৎড়রফ টঃপৎঁং ও খবভর ঙাবৎরধহ ধরা পড়ে। বেদেনা বেগম আরো অসুস্থ্য হয়ে পড়লে কুচিয়ামোড়া গ্রীনলাইফ ক্লিনিক এন্ড ডায়াগনিষ্টিক সেন্টারের মালিক ডাঃ জয়ের সাথে দেখা করে। সে সকল রির্পোট দেখে রোগীর টিউমার দ্রুত অপারেশন করার কথা বলে। গত ২১-০৭১৯ ইং তারিখে উক্ত ক্লিনিকে ভর্তি করে। অপারেশনের বাবদ ১৪ হাজার টাকা নেয়। ২২-০৭-১৯ ইং তােিরখ ডাঃ গোলাম রহমান নামে একজন ডাক্তার ক্লিনিকে বেদেনা বেগমের অপারেশন করেন। ২৭-০৭-১৯ ইং তারিখে গ্রীনলাইফ ক্লিনিক এন্ড ডায়াগনিষ্টিক সেন্টার থেকে তাকে ছাড়পত্র দিয়ে বেদেনা বেগম বাড়ি পাটিয়ে দেয়। বেদেনা বেগম বাড়িতে আসার পর সে আরো অসুস্থ্য হয়ে পড়ে। গ্রীনলাইফ ক্লিনিক এন্ড ডায়াগনিষ্টিক সেন্টারের মালিক ডাঃ জয় কে আবগত করলে সে জানান আমার ক্লিনিকে বেদেনা বেগমের কোন অপারেশন করা হয়নি। এই বলে তাড়িয়ে দেয়।

বেদেনা বেগমের ঊুংঃ বাম সাইডে যা সনো রিপোর্টে উল্লেখ রয়েছে। আপারেশনের সময় বেদেনা বেগমের ডান পার্শ্বে অপারেশন করা হয়। আপরেশনের আলামত রোগীর পরিবার কে কুচিয়ামোড়া গ্রীনলাইফ ক্লিনিক এন্ড ডায়াগনিষ্টিক সেন্টারে ডাক্তার দেখাইনি। ক্লিনিকের মালিক জালিয়াতির মাধ্যামে টাকা নিয়ে রোগীর ঊুংঃ বাম সাইডে কিন্ত ভূল করে ডান পার্শ্বে অপারেশন সেলাই করে দেয়। রোগী এখন গুরুতর অসুস্থ্য।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর ....
© All rights reserved © jknewstv.com
Developed By Rinku
themes254654365664
error: Content is protected !!