মঙ্গলবার, ২০ এপ্রিল ২০২১, ১২:৪৪ অপরাহ্ন
ঘোষনা :
জেকে টিভি'র জন্য জেলা ও উপজেলা প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হবে।  আগ্রহীরা ছবি ও যোগ্যতাসহ জীবন বৃত্তান্ত (সি.ভি)  পাঠান। ই-মেইল: jktv1401@gmail.com

ঢাবিতে সুযোগ পাওয়া অদম্য মেধাবীর সুবর্ণার পাশে দাঁড়ালেন ওয়ালিউল ইসলাম

Reporter Name
  • আপডেট টাইম : শনিবার, ১২ অক্টোবর, ২০১৯
  • ২৮৯ বার নিউজটি পড়া হয়েছে

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) ২০১৯-২০২০ শিক্ষাবর্ষে ‘গ’ ইউনিটের মেধা তালিকায় ৯২৭ নম্বরে এসেও অর্থাভাবে ভর্তি হতে পারছিলেন না কুষ্টিয়ার মেয়ে অদম্য মেধাবি সুবর্ণা খাতুন। কয়েকদিন আগে গণমাধ্যমে এমন একটি সংবাদ প্রচারের পর তাকে সহযোগীতায় এগিয়ে আসেন ওয়ালটন গ্রুপের ডিভিশনাল সেল্স ম্যানেজার ওয়ালিউল ইসলাম আজিম।

শুক্রবার (১১ অক্টোবর) দুপুরে কুষ্টিয়া শহরের মিলপাড়ার কবি আজিজুর রহমান সড়কের সুবর্ণা খাতুনের বাড়ীতে গিয়ে তার পরিবারের হাতে ঢাবিতে ভর্তির জন্য নগদ অর্থ তুলে দেয়া হয়।

এসময় সুবর্ণার পড়া-লেখার ব্যাপারে সার্বিক সহযোগীতার আশ্বাস দেন ওয়ালিউল ইসলাম। তিনি বলেন, অদম্য মেধাবী সুবর্ণা দেশের সর্বচ্চ বিদ্যাপিঠে পড়ার সুযোগ পয়েছে। এটি অনেক আনন্দের বিষয়। আমরা চাই সে পড়ালেখা করে কুষ্টিয়ার মুখ উজ্জল করবে। এ ক্ষেত্রে আমার সাধ্যমত তাকে সহযোগীতা করবো।
তিনি আরও বলেন, এমন দরিদ্র মেধাবীদের জন্য সমাজের বিত্তবানদের বেশি বেশি এগিয়ে আসা উচিত।

কুষ্টিয়া শহরের মিলপাড়ার কবি আজিজুর রহমান সড়কের দিনমজুর মায়ের মেধাবী সন্তান সুবর্ণা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে মেধা তালিকায় স্থান পেয়েও তার ভর্তিতে দেখা দেয় অনিশ্চয়তা। সুবর্ণার মা আরজিনা খাতুন শহরতলীর বটতৈল এলাকায় একটি তুলা মিলে শ্রমিক হিসেবে কাজ করেন। তিনি জানান, মেয়ে সুবর্ণা খাতুনের জন্মের পর তার বাবা মারা যায়। অন্যের হোটেলে এবং তুলা মিলের শ্রমিক হিসেবে কাজ করে মেয়েকে খুব কষ্টে লালন-পালন করেছেন।
সুবর্ণা জানান, কখনও গৃহশিক্ষকের কাছে পড়তে পারিনি।

এ পর্যন্ত কোনো ক্লাসের সব বই কিনতে পারিনি। সহপাঠীদের কাছ থেকে ধার করে বই নিয়ে পড়েছি। শিক্ষকরাও সহযোগিতা করতেন। ২০১৬ সালে এসএসসিতে জিপিএ-৫ পেয়েছিলাম। পরে অর্থের অভাবে আর কলেজে ভর্তি হতে পারিনি। কিন্তু পরের বছর অনেকটাই জেদ করেই কলেজে ভর্তি হয়েছিলাম।
এ বিষয়ে কুষ্টিয়া সরকারি কলেজের ইংরেজি বিভাগের প্রভাষক মো. সাইফুল আলম জানান, সুবর্ণা অসম্ভব মেধাবী। কিন্তু মেয়েটার বাবা নেই, খুব দরিদ্র। আমাকে ওর একজন স্কুল শিক্ষক এ বিষয়ে জানান। আমরা যতটুকু পেরেছি ওকে সাহায্য করেছি।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর ....
© All rights reserved © jknewstv.com
Developed By Rinku
themes254654365664
error: Content is protected !!