বুধবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৪:৪৭ পূর্বাহ্ন
ঘোষনা :
জেকে টিভি'র জন্য জেলা ও উপজেলা প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হবে।  আগ্রহীরা ছবি ও যোগ্যতাসহ জীবন বৃত্তান্ত (সি.ভি)  পাঠান। ই-মেইল: jktv1401@gmail.com

কুষ্টিয়ায় ইউপি মহিলা সংরক্ষণ আসনের সদস্য শিল্পীর বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ; সাময়িক বহিস্কার!

Reporter Name
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ১৭ নভেম্বর, ২০১৯
  • ১৭৩ বার নিউজটি পড়া হয়েছে

কুষ্টিয়ায় বিধবা ভাতা, বয়স্কভাতার কার্ডসহ সরকারীভাবে ববরাদ্দকৃত বিভিন্ন সাহায্য সহযোগীতার আশ্বাস দিয়ে প্রতারণার মাধ্যমে ইউনিয়নের একটি ওয়ার্ডের অর্ধশত মহিলার কাছে থেকে এক ইউপি মহিলা সদস্য ককর্তৃক মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। শুধু তাই নয় টাকা নিয়ে কোন প্রাকার কার্ড করে না দেয়ায় ভুক্তভোগী রোকেয়া খাতুন নামের এক মুক্তিযোদ্ধার স্ত্রী টাকা ফেরত চাওয়ায় ওই বৃদ্ধাকে মারধর করছে অভিযুক্ত শিল্পী মেম্বরও তার স্বামী হাসান। এ ঘটনার পর কুষ্টিয়া সদর উপজেলায় উপস্থিত হয়ে শিল্পী মেম্বরের বিচার চেয়ে ৩২ জন মহিলা সাক্ষরিত একটি অভিযোগপত্র কুষ্টিয়া সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে জমা দিয়েছেন ভুক্তভোগী নারীরা।

অভিযোগ সুত্রে জানাযায়, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি কুষ্টিয়া সদর উপজেলার বটতৈল ইউনিয়ন পরিষদের ৪,৫ ও ৬ নং সংরক্ষিত আসনের ইউপি সদস্য (মেম্বার) শিল্পী মেম্বর ওই এলাকার ৪ নং ওয়ার্ডের রোকেয়া খাতুনসহ প্রায় অর্ধশত মহিলার কাছে থেকে বয়স্কভাতা, বিধবাভাতা, মাতৃকালীন ভাতা দেয়ার নামে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নেন। এভাবে গত ৩ বছরে ৪, ৫ ও ৬ নং ওয়ার্ডের শত শত নারীদের কাছে থেকে বিভিন্ন সুবিধা দেয়ার নামে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন ও প্রভাবশালী শিল্পী মেম্বর এমনই অভিযোগ করেন এলাকার শত শত মানুষ।

এদিকে গত ৩ বছর আগে ৪ নং ওয়ার্ডের রোকেয়া খাতুনের কাছে ছেলের চাকুরী ও বিধবাভাতার কার্ড দেয়ার কথা বলে ৩০ হাজার টাকা দাবি করে ওই শিল্পী মেম্বর। পরে রোকেয়া খাতুন ১০ হাজার দেন। পরে ভাতার কার্ড না দিয়ে নানা তালবাহানা করতে থাকে। এরই মাঝে ৩ বছর অতিবাহিত হয়ে যায়। গত শুক্রবার সকালে রোকেয়া খাতুন শিল্পীর কাছে টাকা ফিরত চাইলে দুজনের মধ্যে বাকবিতণ্ডা হয় এবং পরে দুজনেই বাড়িতে চলে যায়। ঘটনার পরের দিন শনিবার সকালে রোকেয়া খাতুন মনিং ওয়ার্কে গেলে তার উপর হামলা চালায় শিল্পী মেম্বর ও তার স্বামী হাসান। তারা বৃদ্ধা রোকেয়া খাতুনকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেয় এবং চড় থাপ্পড় মেরে লাঞ্ছিত করে।

এ ঘটনার পর আজ ( ১৭ নভেম্বর) সকালে রোকেয়া খাতুনসহ ভুক্তভোগী ৩২ জন মহিলা সদর উপজেলায় উপস্থিত হয়ে ওই শিল্পী মেম্বরের বিরুদ্ধ অভিযোগ করেন। তাদের কাছে থেকে শিল্পী বিধবাভাতা-বয়স্কভাতা, চাকুরী দেয়াসহ বিভিন্ন কৌশলে ২ হাজার টাকা থেকে ১০ হাজার টাকা পর্যন্ত হাতিয়ে নিয়েছেন বলে অভিযোগ করেন ভুক্তভোগীরা। পরে তারা ইউএনও কাছে শিল্পী মেম্বারের বিচার চেয়ে একটি অবেনপত্র জমাদেন। এ সময় ইউএনও জুবায়ের হোসেন চৌধুরী ভুক্তভোগীদের কথা শোনেন এবং তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দেন।

এ ব্যাপারে বটতৈল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এম এ মোমিন মন্ডল জানান, তাৎক্ষণিক তাকে বহিস্কার করা হয়েছে। এ ঘটনায় বটতৈল ইউপি সদস্য আতিয়ার রহমান, আবুল কালাম ও সালাউদ্দিন কে দিয়ে ৩ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে এবং ৩ দিনের মধ্যে তদন্ত রিপোর্ট জমা দিয়ার জন্য নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

কুষ্টিয়া সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) জুবায়ের হোসেন চৌধুরী বলেন, এ ব্যাপারে আমার কাছে ভুক্তভোগীরা অভিযোগ করেছেন। তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

অভিযুক্ত শিল্পী মেম্বার জানান, টাকা নেয়ার অভিযোগ অস্বীকার করে তিনি বলেন, আমার সাথে বাকবিতন্ডা হয়েছে। এই জন্য আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র চলছে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর ....
© All rights reserved © jknewstv.com
Developed By Rinku
themes254654365664
error: Content is protected !!