শনিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২০, ০৯:৫৬ পূর্বাহ্ন
ঘোষনা :
জেকে টিভি'র জন্য জেলা ও উপজেলা প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হবে।  আগ্রহীরা ছবি ও যোগ্যতাসহ জীবন বৃত্তান্ত (সি.ভি)  পাঠান। ই-মেইল: jktv1401@gmail.com

কুষ্টিয়ায় স্কুল ছাত্রী অপহরণের ২দিন পর উদ্ধার!

Reporter Name
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ১৭ ফেব্রুয়ারী, ২০২০
  • ১১৮ বার নিউজটি পড়া হয়েছে

কুষ্টিয়্যা এক স্কুল ছাত্রী অপহরণের ২দিন পর উদ্ধার করে পুলিশ । তবে পুলিশের গাবলতির অভিযোগ তুলে ধরে ওই ছাত্রীর বাবা জানান, গত শুক্রবার (১৪/০২/২০২০ইং) দুপুরে কুষ্টিয়া মিরপুর উপজেলার শাতদহরচর গ্রামের ফজলুর ছেলে সাদ্দাম (৩০) ও একই উপজেলার কুর্শা গ্রামের আব্দুল্লাহ ছেলে মামুন (১৬) ৮ম শ্রেণীর এক ছাত্রীকে বাড়ি থেকে ফুঁসলিয়ে নিয়ে যায়। এবিষয়ে আমি মিরপুর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করি। সেই অভিযোগের ভিত্তিতে সেই দিন রাতে মিরপুর থানার এসআই আবুল কালাম আজাদ মামুনের নানা বাড়ি (হালশা) ও বাবার বাড়ি (কুর্শা) যায়। সেখানে গিয়ে মামুনের মামা ও বাবাকে শনিবারের মধ্যে মেয়েকে হাজির করতে সময় বেঁধে দেয়।

শনিবার সকাল ১১ টার দিকে হালশা ক্যাম্পের ইনচার্জ এসআই সৌমন আমাকে ফোন দিয়ে বলে তুমি তোমার মেয়ের কোন খোঁজ খবর পেলে? জবাবে আমি বলি না। তখন এসআই সৌমন বলেন একটু আশার আলো দেখা যাচ্ছে। তুমি ৩০/৩৫ মিনিট পর ক্যাম্পে আসো। আমার যেতে দেরি হলে এসআই সৌমন নিজে আমার বাসায় চলে আসে এবং বলে তুমি মামলা না করলে আজ রাত ৮ টার মধ্যে মেয়েকে ফেরত পাবা বলে চলে যায়।

পরে বিকেলে হালশা বাজারের বারির চায়ের দোকানে এসআই সৌমন আমাকে ডেকে নিয়ে যায়। সেখানে গেলে সৌমন আমাকে জিজ্ঞাসা করে রকেট ট্রেন কয়টায় আসবে? আমি বলি রাত ৯ বাজবে। তখন এসআই সৌমন বলেন রাত ১০ টার মধ্যে মেয়ে ফেরত আসবে। রাত ১০ টার সময় আমি এসআই সৌমন কে ফোন দিলে সে আমাকে বলে আমার স্টিল ব্রিজ এর কাছে ডিউটি রয়েছে আমি সেখানে চলে এসেছে। এরপর আমি শুয়ে পরি। পরেরদিন রবিবার এসআই সৌমন আমাকে ফোনে বলেন ক্যাম্পে আসেন মিলন চেয়ারম্যান আসবে। কিন্তু সেই দিন সকালে গেলে এসআই সৌমন বলে পরে যেতে। আমি বুঝতে পারি এসআই সৌমন ছেলের পরিবারের কাছ থেকে কোন সুবিধা নিয়ে আমাকে ঘোরাচ্ছেন । আমি বিষয়টি টের পেয়ে মিরপুর থানায় যায় মামলা করতে। ওসি স্যার আমাকে বলে মামলা করবেন না মেয়ে ফেরত নেবেন। পরে থানার আসা ছেড়ে দিয়ে আমি স্থানীয় ভাবে সাবেক চেয়ারম্যান টুটুল এর সাথে বিষয়টা আলাপ করি। এর মধ্যে শুনতে পারি আজ রবিবার রাত ৯টার দিকে আমবাড়িয়া পশ্চিম পাড়া থেকে এসআই সৌমন ছেলের বাবার নিকট থেকে মোটা অংকের সুবিধা নিয়ে ছেলেকে ছেড়ে দেয় এবং মেয়েকে এসআই আবুল কালাম আজাদ এর হাতে তুলে দিয়েছে। এখন থানা থেকে ফোন দিয়ে আমাকে মেয়ে নিয়ে যেতে বলছে।

এদিকে হালশা ক্যাম্পের ইনচার্জ এসআই সৌমনের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমার বিরুদ্ধে এই অভিযোগ বানোয়াট। এই বিষয়ে মিরপুর থানার এসআই আবুল কালাম আজাদ তদন্ত করছেন। আজ মেয়েটি উদ্ধার হয়েছে বলেও জানান তিনি। মিরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ আবুল কালামের মুঠোফোনে কথা হলে তিনি বলেন, আজ অপরহণের একটি মামলা হয়েছে। গত শুক্রবার অপহরণের বিষয়ে ছাত্রীর পিতা একটি অভিযোগ দায়ের করেন এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন গত শুক্রবার কোন অভিযোগ পায়নি। মেয়েটির উদ্ধার ব্যাপারে পুলিশের কোন গাফেলতি ছিল কিনা জানতে চাইলে তিনি ফোনটি কেটে দেন।
তবে অপহরণ নাকী প্রেমের টানে সেচ্ছায় দুজন নিখোঁজ হয়েছিল এ নিয়েও স্থানীয়দের মাঝে গুঞ্জন চলছে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর ....
© All rights reserved © jknewstv.com
Developed By Rinku
themes254654365664
error: Content is protected !!