শুক্রবার, ২৭ নভেম্বর ২০২০, ০১:৫২ অপরাহ্ন
ঘোষনা :
জেকে টিভি'র জন্য জেলা ও উপজেলা প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হবে।  আগ্রহীরা ছবি ও যোগ্যতাসহ জীবন বৃত্তান্ত (সি.ভি)  পাঠান। ই-মেইল: jktv1401@gmail.com

সংক্রমণ ঠেকাতে সামাজিক প্রতিরোধ

Reporter Name
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ৫ এপ্রিল, ২০২০
  • ১৬২ বার নিউজটি পড়া হয়েছে

জামালপুরের বকশীগঞ্জ উপজেলায় করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে সামাজিকভাবে বিভিন্ন উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। শনিবার (৪ এপ্রিল) বকশীগঞ্জ পৌরসভাধীন থানা এলাকার আকন্দ বাড়ীতে গিয়ে দেখা যায় তারা পারিবারিকভাবে তাদের রাস্তা বন্ধ করে দিয়েছে।

বৈশ্বিক মহামারী করোনা ভাইরাসের সংক্রমন ঠেকাতে ও সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতেই নিজেদের বাড়ীর রাস্তা বন্ধ করে একপ্রকার গৃহবন্দী থাকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে আকন্দ বাড়ীর প্রায় ১৬ টি পরিবার।

এ কারণে বাড়ীটি বকশীগঞ্জ শহর থেকে এক প্রকার বিচ্ছিন্ন হয়ে আছে বলা যায়। ফলে বাইরে থেকে বাড়িতে কেউ ঢুকতে পারছেনা এবং কেউ বের হতেও পারছে না।

বিষয়টিকে খুবই গুরুত্বের সাথে দেখছেন এলাকাবাসী। স্থানীয় একজন এলাকাবাসী বলেন, “করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় আকন্দ বাড়ীর এ ধরনের উদ্যোগ এলাকায় খুবই ভালো সাড়া ফেলেছে। এমন উদ্যোগ নিজেদের নিরাপত্তার জন্য গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে।”

এ ব্যাপারে এডভোকেট মোঃ সোহেল রানা আকন্দ বলেন, “সরকারী সিদ্ধান্ত মোতাবেক সারাদেশের মতো বকশীগঞ্জ উপজেলায় লকডাউন চলায় প্রশাসনের তৎপরতার কারণে প্রধান রাস্তাগুলো ব্যবহার করতে না পেরে অনেকেই অবৈধভাবে আমাদের বাড়ীর রাস্তা ব্যবহার করে চলাচল করছিলো। যা আমাদের নিরাপত্তার জন্য হুমকি স্বরূপ। তাই লকডাউনের সরকারি সিদ্ধান্তের প্রতি সমর্থন জানিয়ে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতেই বাড়ীর রাস্তা বন্ধ করা হয়েছে। জরুরি প্রয়োজন ব্যতীত বাড়ি থেকে কেউ বের না হওয়ার জন্য আমরা সম্মিলিতভাবে সিদ্ধান্ত নিয়েছি‌। একইভাবে বাইরে থেকে বহিরাগত কেউই বাড়িতে প্রবেশ করতে পারবে না।”

প্রসঙ্গত, জামালপুরের বকশীগঞ্জ ও দেওয়ানগঞ্জ উপজেলা ভারতীয় সীমান্তবর্তী হওয়ায় এই দুই উপজেলায় করোনা ভাইরাসের সংক্রমনের ঝুঁকি অনেকটা বেশি। তবে পুরো জামালপুর জেলাসহ এই ঝুকিপুর্ণ দুই উপজেলাতেও করোনার সংক্রমন রোধে কঠোর ব্যবস্থা নিয়েছে স্থানীয় প্রশাসন।

প্রয়োজন ব্যতীত বাড়ী থেকে বের হলেই পড়তে হচ্ছে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর জেরার মুখে। রাস্তায় টহল দিচ্ছে সেনাবাহিনী ও পুলিশ।

করোনা ভাইরাস রোধে ইতোমধ্যেই সাপ্তাহিক হাটবার বন্ধ করা হয়েছে। বন্ধ রয়েছে জেলার একমাত্র স্থলবন্দর কামালপুর স্থল বন্দর ও পর্যটন কেন্দ্র লাউচাপড়া অবসর ও বিনোদন কেন্দ্র।

এদিকে জেলার ৭ টি উপজেলা থেকে ১৩ জনের নমুনা সংগ্রহ করে আইইডিসিআরে পাঠানো হয়েছে। এখন পর্যন্ত কারোর শরীরে কোভিড ১৯ এর উপস্থিতি পাওয়া যায়নি।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর ....
© All rights reserved © jknewstv.com
Developed By Rinku
themes254654365664
error: Content is protected !!